ডেনাইট সংবাদ » চাটখিল পলস্নী বিদ্যুৎ অফিস দালাল ও ইলেকট্রিশিয়ানদের দখলে।। স্বাভাবিক কর্মকান্ড ব্যাহত

২১শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং | ৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

234-60

চাটখিল পলস্নী বিদ্যুৎ অফিস দালাল ও ইলেকট্রিশিয়ানদের দখলে।। স্বাভাবিক কর্মকান্ড ব্যাহত

প্রকাশিত হয়েছে: সোমবার, ২০, নভেম্বর, ২০১৭ ১১:৫৯ পূর্বাহ্ণ
timthumb.php1

 

নোয়াখালী প্রতিনিধি:নোয়াখালী পলস্নী বিদ্যুৎ সমিতির চাটখিল জোনাল অফিসে দালাল ও ইলেকট্রিশিয়ানদের দৌরাত্ম বৃদ্ধি পেয়েছে। এরা অফিস দখল করে কর্মরতদের জিম্মী করে রেখেছে। এতে অফিসের স্বাভাবিক কর্মকান্ড ব্যাহত হচ্ছে এবং ডিসেম্বর মাসে চাটখিল ও সোনাইমুড়ি উপজেলা শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনার সরকারের পরিকল্পনা ব্যর্থ হবে।

 

জানা গেছে, সরকার ডিসেম্বর মাসে সারা দেশে ১০টি উপজেলাকে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনবে। এর মধ্যে চাটখিল ও সোনাইমুড়ি উপজেলাও রয়েছে। এ লÿ্য বাসত্মবায়নে বিদ্যুৎ অফিসের লোকজন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যমত্ম কাজ করছেন। প্রধানমন্ত্রী এর অনুষ্ঠানিক উদ্ভোধনের কথা রয়েছে। এ জন্য পুরো এলাকায় নতুন বিদ্যুতের লাইন নির্মান ও বিদ্যুৎ সংযোগের কাজ চলছে। নিয়ম অনুযায়ী অনলাইনে বিদ্যুৎ সংযোগের আবেদন করার কথা থাকলেও দালাল ছাড়া বিদ্যুতের খুটি ও মিটার পেয়েছে এমন নজির নাই! এখানে প্রতিটি খুটি পুঁততে ২০ থেকে ৩০ হাজার এবং মিটার সংযোগে ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যমত্ম দিতে হয় দালাল ও ইলেকট্রিশিয়ানদের। স্বাভাবিক ভাবে এখানে কোন কাজ হয় না। এখানে দেড়শ দালাল ও ২৫/৩০ জন ইলেকট্রিশিয়ান এসব অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে। এরা সেবা নিতে আসা লোকজন থেকে প্রতিনিয়ত লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এবং পলস্নী বিদ্যুতের সমসত্ম কাজ এরা নিয়ন্ত্রন করছে। এই জোনাল অফিস থেকে ফাইল চুরি হওয়ার কথিত অভিযোগ রয়েছে।

দীর্ঘদিন থেকে বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরজমিনে অফিস গিয়ে দেখা গেছে নওশাদ, মহিন, মামুন মিজি, বুলবুল সহ কয়েক জন দালাল এবং কামাল হোসেন, নুরম্নল ইসলাম, স্বপন, ইব্রাহিমসহ কয়েক জন ইলেকট্রিশিয়ান অফিসের বিভিন্ন টেবিলে ফাইল দেখছেন। এর মধ্যে ২/৩ জন দালাল-১জন ঠিকাদার ও ১জন ইঞ্জিনিয়ারকে অফিসের মাঝখান দিয়ে তৃতীয় তলায় উঠার সিঁড়িতে ডেকে নিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন করতে দেখা গেছে। অফিস কর্মরতগণ তাদের কাছে অসহায়। ইলেকট্রিশিয়ান কামালকে জিএম, ডিজিএমসহ অফিসের অন্যান্যরা সমিহ করে চলে। এসব দালাল ও ইলেকট্রিশিয়ানদের বিরম্নদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ লোকজন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারীর নিকট জানালে তারা এদের বিরম্নদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করতে থানার অফিসার ইনচার্জকে নিদের্শ দেন। কিন্তু এতেও এদের দৌরাত্ম কমেনি। তারা লোকজন থেকে বিভিন্ন ভয়ভীতি প্রদর্শন করে অর্থ আদায় করে চলেছে।

উলেস্নখ্য এর মধ্যে দুইজন কর্মকর্তাকে বদলীকরা হলেও দালাল ও ইলেক্ট্রিশিয়ানদের দৌরাত্ম আরো বৃদ্ধি পায়।

এ ব্যাপারে চাটখিল থানার অফিসার ইনচাজ জহিরম্নল আনোয়ারের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, তিনি নিজে পলস্নী বিদ্যুৎ অফিসে গিয়ে দালাল ও ইলেকট্রিশিয়ানদের খোঁজখবর নিয়েছেন এবং এদের বিরম্নদ্ধে ব্যবস্থা নিবেন। ডিজিএম গোপাল চন্দ্র শিব এ ব্যাপারে সকলের সহযোগিতা চেয়েছেন।

Print Friendly

©m01


সর্বশেষ খবর