ডেনাইট সংবাদ » আরএমপির আরও ৮ নতুন থানার কাজ শুরু জানুয়ারিতে

১৭ই আগস্ট, ২০১৮ ইং | ২রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

234-60

আরএমপির আরও ৮ নতুন থানার কাজ শুরু জানুয়ারিতে

প্রকাশিত হয়েছে: বুধবার, ২৭, ডিসেম্বর, ২০১৭ ৪:১৪ অপরাহ্ণ
rmp-20171226165359

মনিরুল ইসলাম, রাজশাহী ঃ রাজশাহী নগর পুলিশের (আরএমপি) পরিধি বাড়ছে। নতুন আরও ৮টি থানা যুক্ত হচ্ছে নগর পুলিশে। আগামী জানুয়ারিতে আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হতে পারে থানাগুলোর। আরএপি বলছে, জননিরাপত্তা নিশ্চিত ও নাগরিক ভোগান্তি কমাতেই এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

আরএমপি সূত্রে জানা গেছে, নতুন পরিকল্পনা অনুযায়ী- নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানার এলাকা ভেঙে হচ্ছে চন্দ্রিমা থানা। আর রাজপাড়া থানার অংশ বিশেষ নিয়ে হচ্ছে কাশিয়াডাঙ্গা থানা। মতিহার থানা থেকে কাটাখালি ও বেলপুকুর থানা হচ্ছে। শাহমখদুম থানা থেকে হচ্ছে বিমানবন্দর থানা।

এছাড়া জেলা পুলিশের পবা থানা থেকে হচ্ছে কর্ণহার ও দামকুড়া থানা। পবা উপজেলার এ নতুন দু’টি থানা থাকবে আরএমপির আওতায়। আরএমপির অধীনে থাকবে পুঠিয়া থানার এলাকার অংশ নিয়ে গড়া বেলপুকুর থানাও।

চার থানা নিয়ে গড়া আরএমপি এলাকার বর্তমান পরিধি ২০৩ বর্গকিলোমিটার। নতুন আরও ৮ থানা যুক্ত হলে আরএমপি এলাকার পরিধি দাঁড়াবে প্রায় ৯০০ বর্গকিলোমিটারে। তবে নতুন থানা হলেও নগরীর ভেতরে থাকা এখনকার ১২টি পুলিশ ফাঁড়ির কার্যক্রম চলবে আগের মতোই।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আরএমপির মুখপাত্র ও সিনিয়র সহকারী কমিশনার ইফতেখায়ের আলম। তিনি বলেন, নতুন ও প্রস্তাবিত মিলিয়ে ১২টি থানার মৌজাভিত্তিক এলাকা নির্ধারণ করে প্রস্তাবটি একনেকে অনুমোদন হয়েছে সম্প্রতি। তবে সীমানা নির্ধারণ নিয়ে আরও একটু জটিলতা রয়েছে। সেটিও সংশোধন করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। আসছে জানুয়ারিতে সরকারি প্রজ্ঞাপন জারির সম্ভাবনা রয়েছে। এটি হয়ে গেলে নতুন থানাগুলোর কার্যক্রম শুরু হবে। এ জন্য কয়েকটি বাড়ি ভাড়া নেয়ার মৌখিক কথাবার্তাও চলছে।

জনবল পর্যাপ্ত আছে জানিয়ে তিনি বলেন, আরএমপির চার থানা ও পুলিশ লাইনে এখন প্রায় আড়াই হাজার পুলিশ কর্মরত। এখান থেকেই নতুন থানাগুলোয় সরবরাহ হবে জনবল। এ জন্য গেল কয়েকমাসে আরএমপি থেকে কোনো পুলিশ কর্মকর্তা বা সদস্যকে অন্যত্র বদলি করা হয়নি। পদোন্নতি পাওয়া পুলিশ কর্মকর্তারাও রয়েছেন নতুন থানায় যোগদানের অপেক্ষায়।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের কমিশনার মো. মাহবুব রহমান বলেন, বিভিন্ন রকম পুলিশি কার্যক্রমে চারটি থানা নিয়ে খুব সমস্যা হচ্ছে। বিশেষ জঙ্গি কার্যক্রমে আমাদের যে অ্যাকশন বা তল্লাশি। এখন আটটি থানা নতুন সৃষ্টির জন্য সরকারের উচ্চ মহলের বিবেচনাধীন আছে।

উল্লেখ্য, ১৯৯২ সালের ১ জুলাই বোয়ালিয়া, মতিহার, রাজপাড়া ও শাহমখদুম থানা নিয়ে আরএমপির কার্যক্রম শুরু হয়। সদর দফতর, দু’টি অপরাধ বিভাগ, সিটি স্পেশাল ব্রাঞ্চ এবং পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট বিভাগ নিয়ে কাজ করছে আরএমপি। চার থানা ছাড়াও এখন আরএমপির রয়েছে ১২টি ফাঁড়ি ও তিনটি পুলিশ বক্স।

শুরুর দিকে নগরীর লোক সংখ্যা ছিল ৩ লাখ। বর্তমানে নগরীর লোকসংখ্যা বেড়ে হয়েছে প্রায় ৮ লাখ। কিন্তু দীর্ঘ পঁচিশ বছরে বাড়েনি একটিও থানা।

এ সময় থানা এলাকায় বেড়েছে আবাসন, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনার সংখ্যা। এছাড়া থানার অধীনে এসেছে দুর্গম পদ্মার চরও। এ অবস্থায় চরাঞ্চল ও থানার দূরবর্তী গ্রামগুলো পাচ্ছে না পুলিশের সেবা। এতে ভোগান্তি বাড়ছে নগরবাসীর।

Print Friendly

©m01


সর্বশেষ খবর

পুরোনো খবর